Saturday, April 13, 2024
আন্তর্জাতিক

ব্রিটিশ উপপ্রধানমন্ত্রীর কম্পিউটারে হাজারো পর্নো ছবি থাকার অভিযোগ

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র ডি ফ্যাক্টো উপপ্রধানমন্ত্রী ডেমিয়ান গ্রিনের বিরুদ্ধে পর্নো ছবি রাখার অভিযোগ উঠেছে। তার সরকারি কম্পিউটারে এই ছবি পাওয়া গেছে। স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের সাবেক এক গোয়েন্দা এ তথ্য জানিয়েছেন। ফলে নতুন করে সংকটে পড়লো থেরেসা মে’র সরকার। গ্রিন অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের সাবেক গোয়েন্দা নেইল লুইস জানিয়েছেন, ২০০৮ সালে এক অভিযানে উপপ্রধানমন্ত্রী ডেমিয়ান গ্রিনের সরকারি কম্পিউটারে কয়েক হাজার পর্নো ছবি পাওয়া যায়।

নেইল বলেন, এত পরিমাণ পর্নো ছবি দেখে নিজেও হতবাক হয়েছিলাম। আর এটা যে ডেমিয়েন গ্রিনের মাধ্যমেই কম্পিউটারে এসেছিল তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। নতুন করে এ তথ্য আগে থেকেই টালমাটাল মে সরকারকে আরো বেকায়দায় ফেলেছে। কেননা বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আগে থেকেই সমালোচনার মধ্যে রয়েছে থেরেসা মে’র সরকার। এরই মধ্যে গ্রিনের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হয়ে গেছে।

গত মাসে ব্রিটিশ সানডে টাইমসের এক প্রতিবেদনে গ্রিনের কম্পিউটারে পর্নো ছবি পাওয়ার তথ্য জানানো হয়। কিন্তু গ্রিন তখন তা অস্বীকার করেন। তার এই অস্বীকারে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন নেইল। তিনি জানান, আমি নিজেই কম্পিউটার তল্লাশি করে এসব পর্নো ছবি পেয়েছিলাম। তবে এবার নেইলের বক্তব্যর পর গ্রিন এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

নেইল লুইস বলেন, ‘কম্পিউটারটি ডেনিয়েল গ্রিনের অফিসে তার ডেস্কে ছিল। কম্পিউটারে তার অ্যাকাউন্ট ও নামটি ছিল। তার এই অ্যাকাউন্ট থেকে মেইল করা হয়েছে। ওই কম্পিউটারের ব্রাউজিংয়ে পর্নোগ্রাফি ছিল। এটি হাস্যকর যুক্তি যে অন্য কেউ এটি করতে পারত।’ লুইস বলেন, আমি নিজেই কম্পিউটার তল্লাশি করে এসব পর্নো ছবি পেয়েছিলাম। হাজারো পর্নো ছবির মধ্য ৯টি ছিল ‘চরম’ পর্যায়ের। কম্পিউটারের বিশ্লেষকদের বলছেন, ওই কম্পিউটার তিন মাসের বেশি সময় ‘ব্যাপকভাবে’ পর্নো দেখা হয়েছে। কখনো কখনো এক বসায় ঘণ্টাখানেক দেখি হয়েছে। বিবিসি