Thursday, May 23, 2024
রাজ্য​

ঋণের বোঝা সইতে না পেরে পেয়ারা গাছে ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী শিক্ষক

তমলুক: কোন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন লোকই ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে চলতে চায় না। তেমনই দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ, গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করল শিক্ষক! বাড়ির সামনের পেয়ারা গাছ থেকে শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারের ঘটনায় পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুকে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে!

মৃতের স্বজনরা জানিয়েছেন, সুব্রত রায় স্থানীয় একটি স্কুলের বাংলার শিক্ষক ছিলেন। অনেকের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে দেনাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। পাওনাদাররা ফোনে এবং বাড়িতে এসে বারবার তাগাদা দেওয়ার কারনে তিনি মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন। সেই অবসাদ থেকেই তিনি আত্মঘাতী হন বলে পুলিশের ধারণা।

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, এলাকায় বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলেন সুব্রতবাবু। সেই টাকা দিতে না পারায় বেশ কিছু দিন ধরেই পাওনাদারেরা ফোন করে টাকা চাইতেন। এমনকি ফোনে হুমকিও দিত বলে পরিবারের তরফে অভিযোগ।

মৃতের পরিবার সূত্রে খবর, বেশ কয়েকদিন ধরেই মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন সুব্রতবাবু। মানসক অবসাদের জেরেই এই ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে। তমলুক থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। শিক্ষকের মৃত্যুতে এলাকার পাশাপাশি স্কুলে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।