Saturday, June 15, 2024
Latestদেশ

নাগরিকত্ব আইন আটকানোর ক্ষমতা নেই রাজ্যের: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

নয়াদিল্লি: সোমবার লোকসভা এবং বুধবার রাজ্যসভাতেও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হওয়ার পর বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে, রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সম্মতি দেওয়ায় বিলটি আইনে পরিণত হল। বিলের বিরোধিতা করে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, কিছুতেই এই বিল বাংলায় কার্যকর হতে দেব না। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, কেন্দ্রের অধীনে আনা আইন কার্যকর করার ক্ষেত্রে কোনও নির্দিষ্ট রাজ্যের তা আটকানোর ক্ষমতা নেই।

পশ্চিমবঙ্গ, কেরল, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড় এবং পাঞ্জাবে এর বিরোধিতা শুরু হয়েছে। এই রাজ্যগুলি জানিয়েছে, তাঁদের রাজ্যে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর করতে দেবে না তাঁরা। তবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সাফ জানিয়েছে, সংবিধানের ৭তম তপশিলে উল্লেখ করা কেন্দ্রীয়মন্ত্রকের অধীনে আনা কোনও আইনে না করার ক্ষমতা নেই রাজ্যের। নাগরিকত্ব গ্রহণ করা কেন্দ্রের অধীন।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, নাগরিকত্ব আইন বাংলায় কার্যকর হতে দেব না। পাশাপাশি, তিনি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে অবিজেপি রাজ্যগুলিতে জোর করে অসাংবিধানিক আইন চাপিয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন।

কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়নের দাবি, এটি একটি অসাংবিধানিক আইন, যা দেশের একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের প্রতি পক্ষপাতদুষ্ট, সেই আইনের কোনও স্থান নেই তাঁর রাজ্যে। তিনি বলেন, সংবিধান সমস্ত ভারতীয়ের নাগরিকত্ব দিয়েছে ধর্ম, জাতি, ভাষা, সংস্কৃতি, লিঙ্গ, পেশার ঊর্দ্ধে। এই আইনের মাধ্যমে এই অধিকারগুলি লঙ্ঘিত হবে। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব স্থির করার মানে হল সংবিধান প্রত্যাখ্যান করা।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেম অমরিন্দর সিংয়ের দাবি, এই আইনটি খুবই বিভাজনমূলক। ধর্মের ভিত্তিতে দেশের মানুষকে ভাগ করার কোনওরকম আইন অবৈধ এবং অনৈতিক। নাগরিকত্ব আইন তাঁর রাজ্যে কার্যকর হতে দেবেন না।