Thursday, April 25, 2024
দেশ

মায়ের অসুস্থতায় বিরক্ত হয়ে মাকে ছাদ থেকে ফেলে খুন করল অধ্যাপক ছেলে

রাজকোট: বাবা-মা তার সন্তানদের কত কষ্ট করে লেখাপড়া শেখান। সমাজে তাদের প্রতিষ্ঠার জন্য করেন কত না সংগ্রাম। অথচ বড় হওয়ার পর সেই বাবা-মাকেই মনে রাখে না তারা। ফেলে আসে বৃদ্ধাশ্রমে। কখনও বা ঘটে এর চেয়েও ভয়াবহ ঘটনা। এবার এক অসুস্থ মাকে বাড়ির ছাদ থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়ে খুন করেছেন এক ছেলে। বহুদিন ধরে বৃদ্ধা মা অসুস্থ ৷ কিছুতেই সেরে উঠছিলেন না তিনি। এই বিষয়টি নিয়ে বেশ বিরক্ত ছিল রাজকোটে ৩৬ বছর বয়সি প্রফেসর সন্দীপ নাথওয়ানি। এমনকি, মায়ের অসুস্থতাকে কেন্দ্র করে নিত্য ঝামেলা, অশান্তি লেগেই থাকত স্ত্রীয়ের সঙ্গে। শেষমেশ সব অশান্তি, ঝামেলায় ইতি টানতে, মাকেই পৃথিবীতে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করে ছেলে। আর প্ল্যান অনুযায়ী, ২৯ সেপ্টেম্বর সকালবেলা সূর্য প্রণামের নাম করে ছাদ থেকে মাকে ঠেলে ফেলে দিলেন সন্দীপ! অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে রাজকোটে।

পুলিশ জানায়, হত্যাকারী সন্দীপ নাথওয়ানি একজন সহকারী অধ্যাপক। বয়স ৩৬। স্থানীয় একটি ফার্মেসি কলেজে পড়ান তিনি। তার মা ৬৪ বছর বয়সি জয়শ্রীবেন বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বর তাকে খুন করে সন্দীপ। পরে পুলিশকে জানান, ছাদে উঠে টাল সামলাতে না পেরে পড়ে গিয়ে মারা গেছেন তার মা।

সন্দীপ নাথওয়ানি

হত্যার ঘটনাটি হয়ত গোপনই থাকত। কিন্তু তদন্তের মোড় ঘুরিয়ে দেয় একটি বেনামি চিঠি। পুলিশের কাছে আসা ওই চিঠিতে সন্দীপের বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার পরামর্শ ছিল। চিঠি পাওয়ার পর নতুন করে তদন্ত শুরু করে পুলিশ।

ফ্ল্যাটের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে পাওয়া ছবি অনুযায়ী, মাকে ধরে ধরে ছাদের সিঁড়ি দিয়ে ছাদে নিয়ে যাচ্ছেন সন্দীপ। তারপর নেমে আসছেন একাই। কিছুক্ষণ পরে প্রতিবেশি এসে জানান দেয়, তার মা নিচে পড়ে আছেন। শুনে তিনি এমন ভান করেন, যেন কিছুই জানেন না।

ভিডিও ফুটেজ দেখার পরেই মাকে হত্যার দায়ে সন্দীপকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। প্রথমে পুরো ঘটনাটি অস্বীকার করলেও, পরে নিজের দোষ স্বীকার করেন তিনি। পুলিশকে জানান, ‘মায়ের অসুস্থতা নিয়ে বিরক্ত ছিলাম। বাড়িতে অশান্তিও লেগে থাকত। আর উপায় না দেখে মাকে ছাদ থেকে ঠেলে ফেলে দিই !’

আপাতত পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন সন্দীপ ৷ তাঁর বিরুদ্ধে পিনাল কোডের ৩০২ ধারায় (খুনের শাস্তি) ফৌজদারি মামলা করা হয়েছে ৷