Monday, June 24, 2024
খেলা

এবার আইপিএল থেকে চিনা স্পনসরদের ছুঁড়ে ফেলার দাবি উঠল

মুম্বাই: চিনের উহান থেকে করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর দেশ জুড়ে চিনা পণ্য বয়কটের দাবি উঠেছেন। এরপরে গালওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হওয়ার পর সেই দাবি আরও জোরালো হয়। এরপর একের পর চিনা সংস্থার সাথে চুক্তি বাতিল করেছে ভারত। গত সোমবার সরকার ৫৯টি চিনা অ্যাপ ভারতে নিষিদ্ধ করেছে। এরপর থেকেই আইপিএল থেকে চিনা স্পনসরদের হটিয়ে দেওয়ার গুঞ্জন শুরু হয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটমহলে। ক্রমশ সেই দাবি জোরালো হচ্ছে।

ভারত সরকারের চিন বিরোধী অবস্থানের ফলেই প্রশ্ন উঠছে চিনা সংস্থার সঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের একাধিক স্পনসরশিপ চুক্তির ভবিষ্যৎ নিয়ে। আইপিএলের বিভিন্ন স্পনসরশিপ চুক্তি পর্যালোচনার জন্য গভর্নিং বডি বৈঠকও ডেকেছে।

ইতিমধ্যেই কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের অন্যতম অংশীদার নেস ওয়াদিয়া দাবি জানিয়েছেন, আইপিএল সহ ভারতীয় ক্রিকেটে সরিয়ে দেওয়া হোক চিনের স্পনসর-সংস্থাগুলোকে। নেস ওয়াদিয়া সাফ জানান, আমাদেরও উচিত চিনা স্পনসরদের সঙ্গে সমস্ত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা। দেশের জন্য। সবার আগে দেশ। অর্থ গৌণ। এবং আমাদের বুঝতে হবে এটা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, চায়না প্রিমিয়ার লিগ নয়। দেশের কাছে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা উচিত আমাদের।

এরপর বিসিসিআইয়ের তরফে বলা হয়, সমস্ত স্পনসরদের ভূমিকা খতিয়ে দেখা হবে। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের এক শীর্ষ আধিকারিক জানান, টি২০ বিশ্বকাপ, এশিয়া কাপের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমরা এখনও কিছু জানি না। তাই বোর্ডের জেনারেল কমিটির মিটিং ডেকে কি হবে! হ্যা, আমরা স্পনসরদের নিয়ে আলোচনা করতে পারি। তবে সেখানে চুক্তি বাতিল কিংবা বিচ্ছেদ এমন শব্দ ব্যবহার করব না।

ওই আধিকারিক আরও বলেন, আমরা স্পন্সরদের সঙ্গে চুক্তির বিষয়বস্তু পর্যালোচনা করব। চুক্তির বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখব। যদি ভিভোর সঙ্গে চুক্তি বাতিল করলে আমাদের বার্ষিক ৪০০ কোটি টাকা লোকসান হবে। আমরা তখনই বিচ্ছেদের পথে হাঁটব যখন পরিস্থিতি আমাদের অনুকূল হবে।

জানা গিয়েছে, ভিভো যদি নিজে থেকে চুক্তি বাতিল না করে তাহলে বোর্ড সেই পথে যাবে না। ২০২২ পর্যন্ত চুক্তি টেনে নিয়ে যাওয়া হবে। কেননা হঠাৎ চুক্তি বাতিল করলে বোর্ডের বড় অঙ্কের ক্ষতি হবে।