অভুক্ত মাকে ঘরে তালাবদ্ধ রেখে বেড়াতে গেলেন মেয়ে-জামাই

দুর্গাপুর: ৭৪ বছরের বৃদ্ধা দেবযানী কুমারকে ছয়দিন ঘরে তালাবন্ধ রেখে আত্মীয়ের বাড়ি বেড়াতে গিয়েছিলেন তাঁর মেয়ে–জামাই।ডিএসপি টাউনশিপের বি-জো়নে বিদ্যাপতি রোডে এলাকার একটি আবাসনে মেয়ে প্রিয়াঙ্কা বার্নোয়াল এবং জামাই বিজয় বার্নোয়ালের সঙ্গে থাকেন দেবযানী।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে জানলা দিয়ে পড়শিদের ডাকতে দেখা যায় দেবযানীকে। তিনি বলে, ঘরে কিচ্ছু নেই। একটু খাবার দাও না। বৃদ্ধার আকুতি শুনে জড়ো হন প্রতিবেশীরা। খবর দেওয়া হয় বি-জোন ফাঁড়িতে এবং ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর স্বরূপ মুখোপাধ্যায়কে। কিন্তু তালা ভাঙা সম্ভব না হওয়ায় জানলার গ্রিল কাটার পরিকল্পনা করে পুলিশ।

পুলিশকে বৃদ্ধা জানিয়েছেন, ছট পুজো উপলক্ষে গত বুধবার স্বামীর সঙ্গে আসানসোলে ননদের বাড়ি যান প্রিয়াঙ্কা। আমার জন্য ঘরে সামান্য কিছু খাবার রেখে তারা বাইরে থেকে আবাসনের তালাবন্ধ করে যান।

মেয়ে প্রিয়াঙ্কা কুমারী

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রতিবেশী বলেন, মাসিমা বারবার বলছিলেন, খাবার শেষ হয়ে গিয়েছে। ঘরে কোন খাবার নেই।

কাউন্সিলর স্বরূপবাবুর ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এমন ঘটনা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না। বুড়ো মানুষটার উপরে এমন অত্যাচার কেন?’

বার্নোয়াল দম্পতিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। দেবযানীকে চিকিৎসার জন্য ডিএসপি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের সামনে দেবযানী দেবী বলেন, মেয়ে-জামাই ক্ষুণ্ণ হবে। কিন্তু আমার আর উপায় ছিল না।