Tuesday, June 18, 2024
দেশ

বিশ্বের বৃহত্তম ‘জিরো-কার্বন নিঃসরণকারী রেলওয়ে’ হতে চলেছে ভারতীয় রেল

নয়াদিল্লি: প্রতি বছর ৫ জুন বিশ্বব্যাপী জনসচেতনতার লক্ষ্যে পালিত বিশ্ব পরিবেশ দিবস (World Environment Day)। পরিবেশের সুরক্ষায় ভারতীয় রেল বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বৃক্ষরোপণ, সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়াস। তবে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ হলো ২০৩০ সালের আগে ভারতীয় রেল বিশ্বের দীর্ঘতম গ্রিন রেলওয়ে (Green Railway) তৈরির লক্ষ্য মাত্রা নিয়েছে। যার ফলে বিশ্বের বৃহত্তম ‘জিরো-কার্বন নিঃসরণকারী রেলওয়ে’ (Net Zero Carbon Emitter) হতে চলেছে ভারতীয় রেল।

কেন্দ্রীয় রেলওয়ে, ২০১৪-২১ সালের মধ্যে মহারাষ্ট্রের ১৮৯৫ কিমি রেলওয়ে ট্র্যাকের বিদ্যুতায়ণের করেছে, যার মধ্যে রয়েছে মধ্যপ্রদেশে ১৪৫ কিমি এবং কর্ণাটকে ১৯৩ কিমি রেলওয়ে ট্র্যাক। এছাড়াও তিনটি সেকশনের মোট ৫৫৫ কিমি ট্র্যাকে এখনও বিদ্যুতায়ণের প্রক্রিয়া চলছে।

রেলপথকে পরিবেশবান্ধব, দক্ষ, সাশ্রয়ী, সময়োপযোগী এবং আধুনিক যাত্রী পরিবহনের পরিষেবা দেওয়ার দিকে এগিয়ে চলেছে ভারতীয় রেল। রেলে বিদ্যুতায়ন পরিবেশ বান্ধব। এই ব্যবস্থা দূষণ হ্রাস করে। ২০১৪ সাল থেকে রেলে বিদ্যুতায়নের কাজ প্রায় দশগুণ বেড়েছে। ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ব্যালেন্স ব্রডগেজ (বিজি) রুটগুলিকে বৈদ্যুতিককরণের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

রেলে বিদ্যুতায়নের ফলে পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে চলবে রেল ব্যবস্থা। ডিজেল জ্বালানির ওপর ভরসা কমবে, যার ফলে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে এবং কার্বন ফুটপ্রিন্টস হ্রাস করা যাবে। অপারেটিং খরচা অনেকটা কম হবে। ভারী মালহবনকারী ট্রেন এবং প্যাসেঞ্জার বহনকারী দীর্ঘ ট্রেনগুলিতে ব্যাপক পরিমাণে খরচ হয়, বিদ্যুতায়ণের ফলে যা অনেকটাই কমে যাবে।