Monday, May 27, 2024
দেশ

এয়ার স্ট্রাইকে ধ্বংস হয়েছে বালাকোটের জঙ্গি ঘাঁটি, উপগ্রহ চিত্রে মিলল প্রমাণ

নয়াদিল্লি: পুলওয়ামা হামলার জবাব দিতে সীমান্ত পেরিয়ে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোররাতে পাকিস্তানের বালাকোটে জইশ ই মহম্মদের সব থেকে বড় জঙ্গি শিবির গুঁড়িয়ে দিয়েছিল ভারতীয় বায়ুসেনা ৷ ১২ টি যুদ্ধবিমান ‘মিরাজ ২০০০’ এই অপারেশনে অংশ নেয়। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ফেলা হয় ১০০০ কেজি বোমা। গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে একাধিক জঙ্গি ঘাঁটি।

তবে বিমানহানার কথা মেনে নিলেও জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংসের কথা অস্বীকার করে পাকিস্তান। এমনকি বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির অনেকে প্রশ্ন তুলছিল, পাকিস্তানে আদৌ কি কোনও জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে ? ধ্বংস হলেও কতজন জঙ্গিকে খতম করেছে ভারতীয় বায়ুসেনা ?

তবে, সমস্ত বিতর্কের অবসান ঘটল স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ্যে আসার পর। ঘটনার পরের দিন এবং আগের দিনের ছবিতে তফাৎ স্পষ্ট। বোমার জেরে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে গোটা এলাকা। ভেঙে পড়েছে পুরো জঙ্গি ঘাঁটিটি। এহেন হামলার জেরে যদি কেউ থাকেও ওই জঙ্গি ঘাঁটির ভিতরে। তাহলে তাদের মৃত্যু অবশ্যাম্ভাবী বলেই দাবি করছে বিশেষজ্ঞরা।

প্রসঙ্গত, শনিবারই মাসুদ আজহারের ভাই তথা জইশের অন্যতম শীর্ষনেতা মৌলানা ওমর স্বীকার করে যে বালাকোটে জইশের ঘাঁটিতেই হামলা হয়েছিল।

মৌলানা অমর বলেন, ভারতীয় বায়ুসেনা কোনও বড় বাড়ি, অফিস, গোয়েন্দা সংস্থার সদর দফতরে হামলা চালায়নি। ভারতীয় বায়ুসেনা মাদ্রসার উপরে বোমা ফেলেছে। যেখানে জেহাদের শিক্ষা দেওয়া হয় এবং কাশ্মীরিদের মুক্তির দাবিতে শপথ নেওয়া হয়। সীমানা পেরিয়ে মাদ্রাসায় হামলা করে ভারত নিজেদের বিরুদ্ধে জেহাদকে আহ্বান করেছে।