Monday, June 24, 2024
কলকাতা

কামদুনি মামলার ফাঁসির আসামিকে মুক্তি কলকাতা হাইকোর্ট, রায়ে চরম হতাশ কামদুনি; সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হতে চলেছে CID

কলকাতা ট্রিবিউন ডেস্ক: শুক্রবার কামদুনি ধর্ষণ ও হত্যা মামলার সাজা ঘোষণা করলো কলকাতা হাইকোর্ট। ফাঁসির সাজা মকুব করেছে আদালত। ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত সইফুল আলি এবং আনসার আলির সাজা বদলে আমৃত্যু কারাদণ্ড ঘোষণা করেছে। ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত আমিন আলিকে বেকসুর খালাসের রায় দেওয়া হয়েছে। নিম্ন আদালতে আমৃত্যু জেলের সাজাপ্রাপ্ত ইমানুল ইসলাম, আমিনুর ইসলাম এবং ভোলানাথ নস্কর ১০ বছর জেল খাটায় খালাস পেয়েছেন। 

হাইকোর্টের রায়ে হতাশ কামুদুনি। কলকাতা আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে রাজ্য বলে খবর। ৩ জনের ফাঁসির সাজা রদ করা হয়েছে আদালতে। এছাড়া ২ জনকে বেকসুর খালাসের রায় দেওয়া হয়েছে। এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যেতে চলেছে রাজ্য।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৭ জুন কলেজ থেকে ফেরার পথে এক ছাত্রীকে উত্তর ২৪ পরগনার কামদুনিতে ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছিল। এই ঘটনায় অভিযুক্তদের কড়া শাস্তির দাবিতে রাগে-ক্ষোভে ফেঁটে পড়ে গোটা বাংলা। 

নিম্ন আদালতের কঠোর সাজা কমানোর এদিন ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন নেটিজেনরা। কামদুনি মৌসুমী বলেছেন, ‘আমরা কলকাতা হাইকোর্টের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানাব। নির্ভয়া-কাণ্ডের আইনজীবীর সাহায্য নেব।’

এই মামলার প্রাথমিক তদন্ত করে রাজ্য পুলিশ। তারপরে এই মামলার দায়িত্ব পায় সিআইডি। চার্জশিটে ৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। বিচারপ্রক্রিয়া চলাকালীন গোপাল নস্কর নামে এক অভিযুক্তের মৃত্যু হয়। ২০১৬ সালের ৩০ জানুয়ারি কলকাতার নগর দায়রা আদালত (ব্যাঙ্কশাল কোর্ট) ৬ জনকে দোষী সাব্যস্ত করে সাজা ঘোষণা করে। নিম্ন আদালতের সেই সাজাকে আজ কমিয়ে দিল কলকাতা হাইকোর্ট।