Thursday, June 13, 2024
দেশ

মন্দিরের ৫ কিমির মধ্যে গোমাংস বিক্রি নিষিদ্ধ, বিল পেশ অসম বিধানসভায়

গুয়াহাটি: উত্তরপ্রদেশের পর এবার গো-সুরক্ষা বিল আনতে চলেছে বিজেপি শাসিত অসম। অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা স্বয়ং বিলটি বিধানসভায় পেশ করেন। গরু পাচার রুখতে বিলটি বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে। ইদানিংকালে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রাজ্য অসমে গুরু পাচার অতিরিক্ত মাত্রায় বেড়েছে এই বিল কার্যকর করা হলে অসম থেকে বাংলাদেশে গরু পাচার বন্ধ হবে

নয়া গো-সুরক্ষা বিলে বলা হয়েছে, মন্দির চত্বরের পাঁচ কিলোমিটারর মধ্যে গোমাংস এবং গোমাংসজাত পণ্য কেনাবেচা নিষিদ্ধ।শুধু তাই নয়, হিন্দু, জৈন, শিখ ও গোমাংস যারা খান না সেইসব এলাকায়ও গোমাংস বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে ওই বিলে।

‘অসম গো-সুরক্ষা বিল ২০২১’তে গোহত্যা, গোমাংস ভক্ষণ এবং বেআইনিভাবে গরু পাচার বন্ধের কথা বলা হয়েছে। দেশের একাধিক রাজ্যে গো-হত্যা রুখার আইন থাকলেও, কোনো কোনো জায়গায় গোমাংসের দোকান থাকা চলবে না, এমন নির্দেশিকা এই প্রথম।

নিয়ম অমান্য করলে কড়া শাস্তি। ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। পাশাপাশি, ৩ থেকে ৮ বছর পর্যন্ত জেলও হতে পারে। এই বিলের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন সংখ্যালঘু জননেতারা। বিধানসভায় ব্যাপক বিরোধিতা করেন তারা এই বিলের। অনেকে মনে করছে, এতে সাম্প্রদায়িক গণ্ডগোল বাধার সম্ভাবনা থাকছে।

মন্দিরের ৫ কিলোমিটারের মধ্যে গোমাংস নিষিদ্ধের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু ওই পাঁচ কিলোমিটার কিসের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হবে? তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কেননা যেখানে-সেখানেই মন্দির বানাতে পারে যে কেউই। যার ফলে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্টের বিধায়ক আমিনুল ইসলাম বলেছেন,  গো-সুরক্ষায় এই বিল আনা হয়নি। মুসলিমদের আবেগে আঘাত করাই এই বিলের লক্ষ্য, যাতে বিভাজন তৈরি হয়। আমরা এই বিলের বিরোধিতা করছি। সংশোধনের আর্জি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, এর আগে অসমে ১৪ বছরের বেশি বয়সি গরুদের হত্যায় কোনো বাধা ছিল না। কিন্তু ১৯৫০ সালের সেই আইন গো-সুরক্ষায় যথেষ্ট নয় বলে মত অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার। তাই আইনের পরিবর্তন আনতে চাইছে অসম সরকার।