Tuesday, April 23, 2024
জীবনযাপন

হঠাৎ ওজন কমে যাওয়া হতে পারে বড় রোগের লক্ষণ

দেহের ওজন হঠাৎ করে কমতে থাকলে তা কোনোভাবেই হালকা করে দেখার উপায় নেই। পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার খাওয়ার পরও ওজন বাড়ছে না। ওজন কমার পাশাপাশি শুকিয়েও যাচ্ছেন। যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে বিষয়টিকে অগ্রাহ্য করবেন না। বড় কোনও রোগ বাসা বাঁধতে পারে আপনার শরীরে।

কখন বিপজ্জনক?
দেহের ওজন যদি বিনা কারণে ছয় মাসের মধ্যে ৫ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি পরিমাণে কমে যায় তাহলে বিষয়টি সম্পর্কে সতর্ক হয়ে যান।
আপনার স্বাভাবিক খাবার ও জীবন যাপনে কোনো সমস্যা হয়েছে কি না, তা লক্ষ করুন। কোনো কারণ না থাকলে ওজন কমে যাওয়া খুবই উদ্বেগের বিষয়।

এর ফলে কী কী সমস্যা দেখা দিতে পারে শরীরে ? 

১. থাইরয়েড: থাইরয়েড গ্রন্থির কোনো সমস্যার কারণে দেহের ওজন হঠাৎ কমতে পারে। হাইপারথাইরয়েডিজম নামে সে সমস্যায় তেমন কোনো বাহ্যিক পরিবর্তন দেখা যায় না। তবে ক্ষুধা বেশি লাগা, হৃত্স্পন্দন বাড়া ও গরম অনুভূতি হওয়ার কথা বলেন অনেক রোগী। এ সমস্যায় দেহের ওজনও বেশ কমে যায়।

২. পেটের সমস্যা: পেটের সমস্যা হলেও অনেক সময় ওজন কমে যায়। ধরুন আপনি যে খাবার খাচ্ছে সেটা ঠিকভাবে হজম হচ্ছে না। খালি পটি হয়ে যাচ্ছে। তার সঙ্গে পেটে ব্যথা। এই বিষয়টিকে অবহেলা করবেন না। আপনার প্যানক্রিয়াসেও কিন্তু সমস্যা দেখা যেতে পারে। যার জন্য ওজন কমে যায়।

৩. ডায়াবেটিস: বর্তমানে ডায়াবেটিস রোগ যেন মহামারি আকার ধারণ করেছে। আর ডায়াবেটিসের কারণে দেহের ওজন হঠাৎ কমে যেতে পারে। দেহের ওজন কমে যাওয়া ছাড়াও পানির পিপাসা ও অতিরিক্ত মূত্রত্যাগের ঘটনা ঘটতে পারে।

৪. বিষন্নতা: মানসিক সমস্যার কারণেও দেহের ওজন কমে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সমস্যা হলো বিষন্নতা। আসল বিষয় হলো মনে যদি আনন্দ না থাকলে কোনও কাজ করতে, ভালো খাবার খেতে ইচ্ছে করে না। যার থেকেই এই সব সমস্যা দেখা যায়।

৫. ক্যান্সার: দেহের বহু ধরনের ক্যান্সারেই হঠাৎ ওজন কমে যেতে পারে। পেটের কোনো অংশের ক্যান্সার, টিউমার ও আলসারের কারণেও ওজন কমে যেতে পারে।

৬. রিউম্যাটয়েড আর্থাইটিস: রিউম্যাটয়েড আর্থাইটিস রোগে মানুষের রুচি নষ্ট হয় এবং আক্রান্তরা খাওয়াদাওয়া কমিয়ে দেয়। ফলে ওজনও কমে যায়।