Sunday, June 23, 2024
দেশ

উত্তরপ্রদেশে প্রাচীন মসজিদ গুঁড়িয়ে দেওয়ার পর উত্তেজনা

লখনউ: উত্তরপ্রদেশের বরাবাঁকিতে (Barabanki) একটি প্রাচীন মসজিদ ভেঙে গুঁড়িয়ে দিল যোগী আদিত্যনাথের সরকার। এই ঘটনায় ওই এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। প্রশাসন জানিয়েছে, ওই মসজিদের কাঠামোটি অবৈধভাবে নির্মাণ করা হয়েছিল এবং এলাহাবাদ হাইকোর্টের অনুমতি নিয়েই স্থাপনাটি ভাঙা হয়েছে। এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে অল ইন্ডিয়া পার্সোনাল ল বোর্ড ও সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। তাঁরা গোটা ঘটনার বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছে।

বরাবাঁকির স্থানীয় মুসলিমরা বলছেন, গত ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে ওই মসজিদে লাগাতার নামাজ পড়া হয়। লখনউ থেকে ২০ মাইল দূরে অবস্থিত বরাবাঁকি জেলা। যে মসজিদটি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সেটির নাম গরিব নেওয়াজ মসজিদ। মাসদুয়েক আগে জেলা প্রশাসন মসজিদটিতে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। এরপর থেকে ওই এলাকায় তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়।

মঙ্গলবার বিশাল বাহিনী মসজিদটির পুরো কাঠামো ভেঙে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়। বরাবাঁকির জেলা প্রশাসক আদর্শ সিং বলেন, গত ১৫ মার্চ ওই অবৈধ স্থাপনা কেন ভেঙে ফেলা হবে না তার কারণ দেখাতে আমরা সংশ্লিষ্ট পক্ষকে নোটিশ দিয়েছিলাম। কিন্তু ওখানে বসবাসকারীরা শুনানিতে না এসে সেখান থেকে পাট গুটিয়ে চলে যান। এরপর ২ এপ্রিল এলাহাবাদ হাইকোর্টে প্রমাণিত হয় ওই কাঠামো অবৈধ।

এদিকে, গরিব নেওয়াজ মসজিদের খাদেম রমজান আলির অভিযোগ, তাদের বক্তব্য পেশ করার কোনও সুযোগই দেওয়া হয়নি। তিনি জানান, গত ১৭ই মার্চ আমরা নোটিশের জবাব দিতে গেলেও কাছারি তা গ্রহণ করেনি। এরপর জেসিবি এনে আমাদের মসজিদটি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড দাবি করেছে, ওই মসজিদটি নিয়ে কখনও কোনও বিতর্ক ছিল না। এটি সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ভেঙে ফেলা হয়েছে। ব্রিটিশ আমল থেকে মসজিদটি, সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডেও নথিভুক্ত।

অভিযোগ উত্তরপ্রদেশে গত চার বছরে যোগী আদিত্যনাথের নেতৃত্বে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ‘দৈনন্দিন সাম্প্রদায়িকতা’ কর্মসূচী তৈরি হয়েছে। এই ঘটনা তার সর্বশেষ দৃষ্টান্ত বলে মনে করছেন লখনউয়ের সাংবাদিক মুনমুন রেহমান। তিনি বলেন, যোগীর আমলে যেভাবে মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা বেড়েছে তা নিয়ে হাজারো প্রশ্ন উঠছে। ওরা মসজিদ ভাঙতেও এতটুকু দ্বিধা করছে না।