Sunday, June 23, 2024
দেশ

নিজের বানেই বিদ্ধ মমতা! ত্রিপুরায় তৃণমূলকে ‘বহিরাগত’ বলল বিজেপি

আগরতলা: ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোরের সংস্থা আইপ্যাকের ২৩ জন সদস্যকে হোটেলে আটকে রাখে ত্রিপুরা পুলিশ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল- ত্রিপুরা সরকার তরজা চরমে ওঠে। পরিস্থিতি সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে ত্রিপুরায় যায় তৃণমূলের প্রতিনিধি দল। বুধবার সকালে প্রতিনিধি দলের ৩ সদস্য পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু, আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক এবং তৃণমূল নেতা ঋতব্রত বন্দোপাধ্যায়। তবে আগরতলা বিমানবন্দরে নামতেই আটকে দেওয়া হয় তাঁদের।

উল্লেখ্য, একুশের বিধানসভা ভোটে বাংলায় ভোট প্রচারে আসা প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা সবাইকেই ‘বহিরাগত’ বলে তীব্র আক্রমণ করেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার মমতার দেখানো পথেই তৃণমূলকে আক্রমণ শানানো ত্রিপুরার বিজেপি সরকার।

আইপ্যাকের ২৩ জন সদস্য এবং তৃণমূলের ৩ সদস্যের প্রতিনিধি দলকে ‘বহিরাগত’ বলে কটাক্ষ করল ত্রিপুরা বিজেপি। বুধবার ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি তিন মুখপাত্র রতন চক্রবর্তী, সুব্রত চক্রবর্তী এবং নব্যেন্দু ভট্টাচার্য সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সেখানে তাঁরা তৃণমূলের তীব্র সমালোচনা করেন।

সিপিএম- তৃণমূল সখ্যতা নিয়েও তীব্র আক্রমণ শানায় ত্রিপুরা বিজেপি। তাঁরা বলেন, সিপিএম- তৃণমূল একটা নতুন রসায়ন তৈরি হতে চলেছে। ২১ জুলাই শহিদ দিবসের মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একবারের জন্যেও বামফ্রন্টের নাম মুখে নেননি। অথচ তাদের জন্যই ১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই নিহত হন ১৩ জন যুবকংগ্রেস কর্মী।

সাংবাদিক সম্মেলনে ত্রিপুরা বিজেপির দাবি, তৃণমূল দলটাই একটা উচ্ছৃঙ্খল দল। করোনা পরিস্থিতিতে আইপ্যাকের সদস্যরা সোনামুড়া, সাব্রুম- সহ ত্রিপুরার বিভিন্ন এলাকায় করোনা বিধি নামে মেনেই চলাফেরা করছিল। চা বাগানগুলোতেও যান তাঁরা। আইপ্যাকের ওই ২৩ সদস্যের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারার মহামারি মোকাবিলা আইনে মামলা দায়ের করেছে ত্রিপুরা পুলিশ।