Friday, June 14, 2024
দেশ

তেলেঙ্গানায় ফরেস্ট রেঞ্জার আবদুল রহমান কর্তৃক ‘দ্বাজা স্তম্ভ’ ধ্বংস; বিক্ষুব্ধ উপজাতিদের ফরেস্ট অফিসে হামলা

কলকাতা ট্রিবিউন ডেস্ক: ফরেস্ট রেঞ্জার আবদুল রহমান কর্তৃক বনবাসীদের (উপজাতি) একটি পবিত্র দ্বাজ স্তম্ভ ধ্বংস করার ঘটনা তেলঙ্গানায় উত্তেজনা বিরাজ করে।

৩০ মার্চ রামনবমীর একদিন পরে, ভদ্রাদ্রি কোঠাগুডেম জেলার অশ্বরাওপেট মন্ডলের গুম্মাদিওয়ালি গ্রামের বনবাসী তাদের প্রাচীন আদিবাসী ঐতিহ্য অনুসারে গঙ্গানামা মন্দিরে একটি নিম গাছের কাণ্ড দিয়ে তৈরি একটি নতুন ধ্বজ স্তম্ভ স্থাপনের জন্য প্রস্তুত হন। এই বনবাসীরা বন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে পূর্বানুমতি নিয়ে নিকটবর্তী জঙ্গল থেকে গাছের গুঁড়ি নিয়ে আসে। তারা যখন মন্দিরের সামনে ‘দ্বাজা স্তম্ভ’ হিসেবে দাঁড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল, তখন হঠাৎ বন কর্মকর্তারা রেঞ্জার আবদুল রহমানের নেতৃত্বে মন্দিরে পৌঁছে, স্থানীয়দের অনুরোধ উপেক্ষা করে পবিত্র ধ্বজ স্তম্ভটি কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলে।

দ্বাজা স্তম্ভ ধ্বংসের খবর জেলায় দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় গ্রামের বিক্ষুব্ধ আদিবাসীরা বিপুল সংখ্যক জড়ো হয়ে বিভাগীয় বন অফিসে ছুটে গেছে, তাদের অনুভূতি ও আদিবাসী ঐতিহ্যের অবমাননার জন্য ন্যায়বিচার ও ফরেস্ট রেঞ্জার আবদুল রহমানকে অবিলম্বে বরখাস্ত করার দাবি জানিয়েছে।

স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা ও রাজনীতিবিদরা নতুন গাছের গুঁড়ির ব্যবস্থা করার আশ্বাস দিয়েছেন। এবং আবদুল রহমানের ক্ষমা চাওয়ার মাধ্যমে বিক্ষুব্ধ আদিবাসীরা শান্ত হয়।

স্থানীয়রা বলছেন, ফরেস্ট রেঞ্জার সম্প্রতি হিন্দু ধর্ম থেকে ইসলাম গ্রহণ করেছেন।

তথ্যসূত্র: Nijam Today