Monday, May 27, 2024
বিনোদন

বিশ্বে প্রথমবারের মতো চালু হলো পুতুলের যৌনপল্লী!

বিশ্বে প্রথমবারের মতো চালু হয়েছে পুতুলের যৌনপল্লী। অদ্ভুত এই পল্লীতে রয়েছে ১১টি পুতুল। সাত হাজার ৮০০ টাকা (৮০ ইউরো) খরচ করলেই সেগুলোর যেকোনো একটির সঙ্গে কাটানো যাবে পুরো এক ঘণ্টা।

লন্ডনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেন্ডেন্টের খবরে বলা হয়, জার্মানির ডর্টমুন্ড শহরে ওই যৌনপল্লীটি চালু করেছেন এভলিন সোয়ার্জ নামের এক তরুণী। তিনি পল্লীটির নাম দিয়েছেন ‘বোরডল’।

ইভেলিন সোয়ার্জ জানান, খদ্দেরের চাহিদার কথা মাথায় রেখে নানা রকমের পুতুলের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সুন্দরী তরুণীর আদলে তৈরি ১১ টি ‘সিলিকন’ পুতুল রাখা হয়েছে সেখানে, যাদের আবার আলাদা আলাদা নামও দেয়া হয়েছে।

৩০ কেজি ওজন প্রতিটি পুতুলের। প্রায় দুই হাজার ইউরো (ভারতীয় মুদ্রায় ১.৫ লাখ টাকার কাছাকাছি) দাম এশিয়া থেকে আমদানি করা ওই পুতুলগুলোর। পছন্দের পুতুলের জন্য নাকি কোনো কোনো খদ্দের বিশেষ পোশাকও নিয়ে আসেন। এমনটাই দাবি করেছেন ইভেলিন।

ইভেলিনের ভাষায়, সমাজের বিভিন্ন পেশার, বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ এখানে খদ্দের হিসেবে আসেন। সেই বিবেচনায় পুতুল যৌনকর্মীদের উচ্চতা, চুলের রঙ এবং শারীরিক গঠন ভিন্ন ভিন্ন রাখা হয়েছে। ‘ব্রথেল’ নামের পুতুল সেখানে সবচেয়ে জনপ্রিয়। জাপানি মেয়ের আদলে তৈরি ‘ব্রথেল’ নীল নয়না। খদ্দেরের চাহিদা মেটাতে ব্রোথেলের ডাক পড়ে দিনে অন্তত ১২ বার।

তবে দুঃখ করে এভলিন বলেন, সম্প্রতি অ্যানা নামের একটি পুতুলকে পরিবর্তন করতে হয়েছে। কারণ এক ব্যক্তি ভাড়া নেওয়ার পর সেটি ভেঙে ফেলেন।

৭০ শতাংশ খদ্দের একাধিক বার সেখানে গেছেন বলে দাবি যৌনপল্লীর মালিকের। ইভেলিন জানান, নারী যৌনকর্মীদের থেকেও এই পুতুলগুলোর চাহিদা এখন বেশি। অনেকে নাকি স্ত্রীকে গাড়িতে রেখে টাকা খরচ করে যান পুতুলের পেছনে।

এই পেশার মধ্যে খারাপ কিছু দেখেন না ইভেলিন। খদ্দেরের চাহিদা পূরণ এবং আনন্দ দানের জন্যই এই ব্যবস্থা রাখার কথা জানান তিনি। সেখানে যৌনপল্লীর সফলতা দেখে ইউরোপের আরও কয়েকটি দেশে একই রকম আয়োজনের তোড়জোড় শুরু হয়েছে।