Monday, May 27, 2024
দেশ

সংখ্যালঘু খাতে টাকা দিচ্ছে না কেন্দ্র, অভিযোগ মমতার

কলকাতা: মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ফের কামান দেগেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তরজার তুঙ্গ মুহূর্তে এসে আক্রমণের জন্য সংখ্যালঘুদের একটি অনুষ্ঠানকেই বেছে নিলেন তিনি।

এর আগে সোমবার রাজ্যের বিভিন্ন দফতরের পর্যালোচনা বৈঠকের পরে মমতা বলেছিলেন, কয়েকটি প্রকল্পে ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত কেন্দ্রের কাছে নবান্নের পাওনা বকেয়া রয়েছে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা।

আর মঙ্গলবার সংখ্যালঘুদের এক অনুষ্ঠানে তাঁর অভিযোগ, ‘‘সংখ্যালঘু দফতরের টাকা কেন্দ্র দিতেই চায় না। অনেক টাকা বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা আগের বারেও নিজেদের টাকায় স্কলারশিপ দিয়েছি। এ বারেও বলেছি, নিজেদের টাকা থেকেই তা দেবো। সংখ্যালঘু ছেলেমেয়েরা পড়াশোনা করবে না, মানুষ হবে না— এটা আমি দেখতে চাই না।’’

সোমবার কেন্দ্রীয় ভারী শিল্প প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেন, টাকা কেন্দ্রের। প্রকল্প কেন্দ্রের। অথচ নিজের খুশিমতো নাম দিয়ে নাম কিনছেন মুখ্যমন্ত্রী! বাবুলের বক্তব্য, ইউটিলাইজেশন সার্টিফিকেট বা কাজ শেষে টাকার সদ্ব্যবহার শংসাপত্র না-দিলে কেন্দ্রের কাছ থেকে বরাদ্দ যে পাওয়া যায় না, সেটা মুখ্যমন্ত্রীর জানা উচিত।

এ দিন নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে রাজ্য সংখ্যালঘু বিষয়ক ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরের বার্ষিক অনুষ্ঠানে মমতার কটাক্ষ, ‘‘কেউ কেউ ফুসফাস করে বলে, ‘কেন্দ্রের টাকা’। টাকাটা এল কোথা থেকে! রাজ্যের থেকে। মাছের তেলে মাছ ভাজা। আমার রাজ্য থেকে ৪০ হাজার কোটিরও বেশি টাকা তুলে নিয়ে যাও। দাও কত? বড়জোর ১৫ হাজার কোটি দাও।’’ এর পরেই তাঁর মন্তব্য, ‘‘আমাদের থেকে টাকা তুলে নিয়ে যেয়ো না। তা হলে আমরা এক পয়সাও চাইব না। আমরা ভিক্ষে চাই না। আমাদের টাকার আমাদেরই ভাগ দেবে না। আবার বলবে, কেন্দ্র দিচ্ছে। অত সোজা কথা নয়!’’