Sunday, April 21, 2024
দেশ

তাৎক্ষণিক তিন তালাক বেআইনি, সাজা জামিন অযোগ্য ৩ বছরের কারাদণ্ড

নয়াদিল্লি: তাৎক্ষণিক তিন তালাক তথা তালাক প্রথাকে গত আগস্টে অসাংবিধানিক ঘোষণা করে সুপ্রিমকোর্ট। তবে রায় দেওয়ার পরও এই নিন্দনীয় কুপ্রথার ব্যবহার বন্ধ হয়নি। তাই তিন তালাক প্রথা রদ করতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহের নেতৃত্বাধীন আন্তঃমন্ত্রীগোষ্ঠীর খসড়া আইনে তাৎক্ষনিক তিন তালাক ঘোষণা বেআইনি, বাতিল প্রথা বলা হল। ওই মন্ত্রিগোষ্ঠীতে আছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ ও তাঁর মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী পি পি চৌধুরি।

সংসদের শীতকালীন অধিবেশনেই পেশ করা হতে চলেছে এই বিল। যে খসড়ায় জানানো হবে যে, যারা ৩ তালাক দেবেন , তাদের জামিন অযোগ্য ধারায় ৩ বছরের সাজা ভুগতে হবে।

খসড়া আইনে মৌখিক, লিখিত বা এসএমএস, ই মেল, হোয়াটসঅ্যাপের মতো যাবতীয় ইলেকট্রনিক মাধ্যম, যে কোনও ভাবে ঘোষণা করা তিন তালাক বেআইনি বলে দেখা হবে। তবে এই নয়া আইন লাগু হবে না জম্মু ও কাশ্মীরে।

এক সরকারি অফিসার বলেন, সরকারের ধারণা ছিল, সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়ের পর তালাক দেওয়ার প্রথা বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু তিন তালাক চলছেই। ওই রায়ের আগে ১৭৭টি তিন তালাকের অভিযোগ নথিভুক্ত হয়, রায় ঘোষণার পর ৬৬টি। এক্ষেত্রে শীর্ষে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। তাই এই নিন্দনীয় কুপ্রথার বন্ধে সরকার আইন চালু করার রাস্তায় হাটছে।

প্রসঙ্গত, তিন তালাক ইস্যুতে সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপের বিষয় নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি। এমনকি, সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা জমা দিয়ে তিন তালাক প্রথায় আদালতের হস্তক্ষেপ ঠেকানোর শেষ চেষ্টা করেছিল অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড। তবে তিন তালাক প্রথা ‘অসাংবিধানিক’ বলে ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট। এবং এই প্রথা ইসলাম ধর্মপালনের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গিভাবে যুক্ত নয় বলেও জানায় ভারতের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট।