Tuesday, June 18, 2024
দেশ

জনপ্রিয়তার ধারেকাছে ছিলেন না মহাত্মা গান্ধী, নেহেরু; তাই নেতাজিকে খুন করেছে কংগ্রেস: সাক্ষী মহারাজ

লখনউ: নেতাজির জন্ম আছে কিন্তু মৃত্যু নেই। তিনি চিরকাল বেঁচে থাকবেন কোটি কোটি ভারত বাসীর হৃদয়ে। নেতাজি মানে শুধু পশ্চিমবঙ্গ তথা বাংলার মানুষের কাছে নয়, গোটা ভারতবাসীর কাছে একটা আবেগ। নেতাজির অন্তর্ধান রহস্য আজও অধরা, অমিমাংসিত। সেই নেতাজির ১২৫তম জন্মজয়ন্তীতে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন উত্তরপ্রদেশের উন্নাওয়ের বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ (Sakshi Maharaj)।

শনিবার নেতাজির জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে একটি জনসভায় সাক্ষী মহারাজ বলেন, আমার সাফ কথা, নেতাজিকে হত্যা করিয়েছিল কংগ্রেস। কারণ, জনপ্রিয়তার নেতাজির ধারেকাছে ছিলেন না মহাত্মা গান্ধী বা জওহরলাল নেহেরু-সহ কংগ্রেসের কেউই। নেতাজি বেঁচে থাকলে তিনিই হতেন স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী। তাই তাঁকে হত্যা করেছিল কংগ্রেস।


সাক্ষী মহারাজ আরও বলেন, সুভাষ বসু দেশের জন্য নিজের সর্বস্ব ত্যাগ করেছিলেন। তাঁর এই আত্মত্যাগ দেশবাসী কোনওদিনও ভুলবে না। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জনে তাঁর অবদানকে সবসময় খাটো করে দেখানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, নেতাজির ১২৫তম জন্মজয়ন্তীতেও নেতাজি সম্পর্কে একাধিক ফাইল প্রকাশের দাবি জানিয়েছে বিরোধিরা। স্বাধীনতার এতগুলো বছর কেটে গেলেও আজও রহস্য কাটেনি নেতাজির অন্তর্ধান রহস্যের। তার মধ্যে বিজেপি সাংসদের এই মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে।

প্রসঙ্গত, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে আজাদ হিন্দ বাহিনীর ‘গুপ্তধন’ হস্তগত করার অভিযোগও রয়েছে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর বিরুদ্ধে। অনেকের দাবি, তাইওয়ানের বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজির মৃত্যুর ঘটনায় পুরোটাই সাজানো। আদতে জাপানিদের সাহায্যে সোভিয়েত ইউনিয়ন চলে যান নেতাজি। সেখানেই ছিলেন তিনি। এ কথা জানতেন নেহেরু। সব মিলিয়ে নেতাজির অন্তর্ধান রহস্য আজও অধরা।