বিহারে ‘পদ্মাবতী’ নিষিদ্ধ করলেন নীতিশ কুমার

পাটনা: মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট কড়া নির্দেশ দিয়ে জানিয়েছে, ”গুরুত্বপূর্ণ পদে আছে এমন কেউ ‘পদ্মাবতী’ নিয়ে আগে থেকে কোনও মন্তব্য করতে পারবেন না। সিনেমাটি এখনও সেন্সর বোর্ডের বিচারাধীন রয়েছে। তাছাড়া যে ছবি মুক্তি পায়নি। সেই ছবি নিয়ে মন্তব্য করা একেবারেই ঠিক নয়।

সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশিকার কিছুক্ষণের মধ্যেই বিহারে পদ্মাবতী নিষিদ্ধ করলেন মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। তিনি বলেন, যতক্ষণ না পর্যন্ত ‘পদ্মাবতী’ নিয়ে পরিচালক ও প্রযোজকরা কোনও পর্যপ্ত ব্যাখ্যা দিচ্ছেন ততক্ষণ সিনেমাটি বিহারে মুক্তি পাবে না।

নীতীশ কুমারের আগেই মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান এবং গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি তাঁদের রাজ্যে ‘পদ্মাবতী’ সিনেমা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন।

এছাড়াও রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ এবং পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীরা জানান, ‘পদ্মাবতী’ ছবিটি তাঁরা নিজ নিজ রাজ্যে মুক্তি পেতে দেবেন না। এ বিষয়ে আজ সর্বোচ্চ আদালত তাঁদের তিরস্কার করে বলেছেন, যাঁরা সরকারি কাজে অধিষ্ঠিত, তাঁদের এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা উচিত নয়।

প্রসঙ্গত, ‘পদ্মাবতী’ ছবি নিয়ে বিতর্ক শুরু হয় রানি পদ্মাবতীর একটি নাচ ও আলাউদ্দিন খিলজির রানির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একটি দৃশ্য নিয়ে। যদিও ছবির পরিচালক সঞ্জয় লীলা বানসালি বারবার বলেছেন, দ্বিতীয় দৃশ্যটি ছবিতে নেই। এতেও ক্ষোভ কমেনি। বরং বিক্ষোভকারীরা দাবি তুলেছে, ছবির সব বিতর্কিত অংশ বাদ দিতে হবে। তা না হলে এই ছবি মুক্তি দেওয়া হবে না। কোটায় প্রেক্ষাগৃহে আগুন লাগিয়ে দেওয়া থেকে শুরু করে দীপিকাকে খুনের হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে। কর্ণি সেনার দাবি, সঞ্জয় লীলা বনশালি রাজপুতদের ইতিহাস বিকৃত করেছেন।