Thursday, April 25, 2024
দেশ

ভারতে আছে ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা, সন্ত্রাসবাদী যোগ উড়িয়ে দেওয়া যায় না: কে কে শর্মা

নয়াদিল্লি: এখনও ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা ভারতে আছে। তাদের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদীদের যোগসূত্র একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। আজ এক অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য করেন বিএসএফ ডিরেক্টর জেনেরাল কে কে শর্মা।

১লা ডিসেম্বর সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর ৫২-তম রেইজিং ডে। সেই উপলক্ষ্যে আজ একটি অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এ বছরের শুরু থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ৮৭ জন রোহিঙ্গা ধরা পড়েছে। ৭৬ জনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এখনও ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা ভারতে আছে বলে আমাদের কাছে খবর। এখনও পর্যন্ত কোনও রোহিঙ্গা অস্ত্রশস্ত্র সহ ধরা পড়েনি। তাদের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের যোগও পাওয়া যায়নি। তবে, বাকি রোহিঙ্গাদের ক্ষেত্রে এই যোগের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

ডিজি বলেন, “রোহিঙ্গা সমস্যা বেশ জটিল। মায়ানমার থেকে কমপক্ষে ১০ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। ওদের একটা অংশ ভারতে চলে আসতে পারে। আমাদের একটাই বক্তব্য, রোহিঙ্গা বা বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী কাউকেই ভারতে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। এর জন্য ফাঁড়িগুলিতে নজরদারি যন্ত্রপাতি বসানো হয়েছে। নিরাপত্তারক্ষীও বাড়ানো হয়েছে। রোহিঙ্গা ধরা পড়লে তাদের ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।” এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “কে বাংলাদেশি আর কে রোহিঙ্গা তা আলাদা করে চেনার উপায় নেই। তাই, এপারে যারাই প্রবেশের চেষ্টা করুক তাদের ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।”

মায়ানমার থেকে কমপক্ষে ১০ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে

বিএসএফের পেশ করা এক সরকারি রিপোর্টে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের ভারতে কাজের সুযোগ আছে বলে লোভ দেখায় এজেন্টরা। বোঝানো হয়, জম্মু কাশ্মীর, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনের সঙ্গে তারা থাকতে পারবে। বেশিরভাগ রোহিঙ্গা প্রথমে জম্মু কাশ্মীর যায়। সেখানে কিছুদিন থাকার পর তারা নিজেদের আত্মীয়দের আমন্ত্রণ জানায়। বলে, কাজের সুযোগ আছে। কাজ না পেলে অন্য রাজ্যে চলে যায় রোহিঙ্গারা।