Monday, April 22, 2024
দেশ

সুলতান- শাসকদের ধ্বংস করা মন্দির এক এক করে পুনরুদ্ধার করে চলেছেন নরেন্দ্র মোদী

কলকাতা ট্রিবিউন ডেস্ক: ভারতবর্ষ— এক বৈচিত্র্যময় দেশ। গঙ্গার জল যত গড়িয়েছে, বৈচিত্র্যে এবং ইতিহাসে ততই মিলে মিশে গেছে ভারত। সেই বহু প্রাচীন কাল থেকে এখানে সভ্যতার উদযাপন চলছে। তৈরি হয়েছে একের পর এক স্থাপত্য। তৈরি হয়েছে বহু মন্দির, দেবালয়। তবে সুলতান, শাসকরা বহু স্থাপত্য ধ্বংসও করে দিয়েছেন। ধ্বংস করে দেওয়া মন্দিরগুলো একের পর এক সংস্কার করে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

কাশী বিশ্বনাথ করিডর: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্প্রতি কাশী বিশ্বনাথ করিডর উদ্বোধন করেছেন। কাশী বিশ্বনাথ মন্দির থেকে গঙ্গার পাড় অবধি পাঁচ লাখ বর্গফুট এলাকা জুড়ে সাজিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে করিডর। ২০১৯ সালে এই প্রকল্পের শিল্যন্যাস করেছিলেন মোদী। তার পর প্রায় ৩৩৯ কোটি টাকা খরচে হয়েছে এই করিডর।

গুজরাটের সোমনাথ মন্দির: গুজরাটের সোমনাথ মন্দির ‘চিরন্তন পীঠ’ নামে পরিচিত। অতীতে বার বার এটি ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছে। গজনী থেকে শুরু করে ঔরঙ্গজেব মন্দিরটিতে হামলা এবং লুটপাট চালিয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই এটি পুণ: নির্মিত হয়েছে। ২০২১ সালের আগস্টে সোমনাথ মন্দিরে পার্বতী মাতা মন্দিরের শিলান্যাস, সোমনাথ মন্দিরের দর্শন পথ এবং এক্সিবিশন সেন্টারের উদ্বোধন করেন মোদী।

অযোধ্যার রাম মন্দির: ২০১৯ সালের ৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণে সমস্ত বাধা দূর হয়। ২০২০ সালের আগস্টে রাম মন্দিরের শিলান্যাস করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এবার কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকারের লক্ষ্য শ্রীনগরের রঘুনাথ মন্দির এবং পাদেন্দ্র মন্দির, অনন্তনাগের মার্তন্ড মন্দির, পাটনার শঙ্করগৌরীশ্বর মন্দির, অবন্তিপুরার অবন্তীস্বামী এবং অবন্তিস্বরা মন্দিরের পুনর্নির্মাণ। তালিকায় রয়েছে উত্তরাখণ্ডের কেদারনাথ মন্দিরও।

তবে শুধু ভারত নয়, বিদেশের মাটিতেও মন্দির নির্মাণের কাজ জারি রয়েছে। ২০১৮ সালে আবুধাবিতে প্রথম হিন্দু মন্দিরের শিলান্যাস করেন মোদী। ২০১৯ সালে বাহরাইনের ২০০ বছরের পুরনো শ্রীনাথ জি মন্দিরের পুনর্নির্মাণের জন্য কয়েক কোটি টাকার প্রজেক্ট লঞ্চ করেন তিনি। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার রমনা কালী মন্দিরের সংস্কারের জন্য ৭ কোটি টাকা দেয় ভারত সরকার।