Sunday, May 26, 2024
রাজ্য​

যৌনপল্লী থেকে বিচারকের আসনে রূপান্তরকামী ‘সিন্টু বাগুই’

শ্রীরামপুর: যৌনপল্লিতেই বেড়ে উঠা। আর চার-পাঁচটা ছেলে-মেয়ের মত জীবন নয়। সমাজ পরিবার সবার বাঁকা চাহনি সহ্য করতে হয়েছে। তারপরেও দমে যাননি সিন্টু বাগুই। রাজ্যের শেওড়াফুলি স্টেশনের পার্শ্ববর্তী গড়বাগানের বাসিন্দা তিনি। শুধু তা-ই নয়, তিনি একজন ‘মেয়েলি পুরুষ’ বা রূপান্তরকামী। শনিবার ২৭ বছর বয়সি এই রূপান্তরকামী নারী শ্রীরামপুরে লোক আদালতের বিচারকের আসনে বসেন।

সিন্টু বলেন, যৌনকর্মীর সন্তান এবং রূপান্তরকামী হিসেবে সম্ভবত আমিই প্রথম এই দায়িত্ব পালন করলাম। আত্মবিশ্বাস বাড়ল। রূপান্তরকামী নারী সিন্টু জানান, দশ বছর বয়স থেকে তার মধ্যে ‘মেয়েলি’ ভাব প্রকট হতে থাকে। এ নিয়ে বাড়িতে তাকে সবাই নানা কথা বলে। এমনকি মারও খেতে হয়েছে।

অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনার পর রূপান্তরকামীদের আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন সিন্টু। কিন্তু সে সময় তার চলার পথ অত সহজ ছিল না। নানা বাধার মুখে পড়তে হয়েছে। তারপরেও হাল ছেড়ে দেননি।

মায়ের কথা স্মরণ করে রূপান্তরকামী এই নারী বলেন, ৭ বছর আগে মা মারা গিয়েছেন। আজ যদি মা বেঁচে থাকতেন তাহলে আমার সাফল্যে খুশি হতেন। তিনি আরও বলেন, যৌনকর্মীর সন্তান হিসেবে পরিচয় দিতে বিন্দুমাত্র খারাপ লাগে না। বরং আমি এই পেশাকে সম্মান করি। এই পেশার লোকদের শ্রদ্ধা করি।