Sunday, April 21, 2024
আন্তর্জাতিক

নারী রোবট ‘সোফিয়া’কে সৌদি নাগরিকত্ব দেয়া নিয়ে কেন এতো বিতর্ক?

নারী রোবট ‘সোফিয়া’কে সৌদি নাগরিকত্ব দেওয়ার পর তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে। বলা হচ্ছে, এই রোবট একজন সৌদি নারীর চেয়েও বেশি অধিকার ভোগ করছে।

গত সোমবার সৌদি আরবের রিয়াদ নগরীতে এক অনুষ্ঠানে এই রোবটটি প্রদর্শন করা হয়। এ সময় উপস্থিত শত শত প্রতিনিধি রোবটটি দেখে এতটাই মুগ্ধ হন যে সেখানে সাথে সাথেই এটিকে সৌদি নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। এরপর সোশাল মিডিয়ায় রোবট নারী ‘সোফিয়া’র ছবি ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়।

নারী রোবট ‘সোফিয়া’কে সৌদি নাগরিকত্ব দেওয়ার খবরটি দেখে প্রথমদিকে সোশাল মিডিয়ায় যে ক’টি প্রতিক্রিয়া পোস্ট করা হয় তার বেশির ভাগ ছিল ইতিবাচক। এই খবরটি টুইটারে ৩০০ হাজার বার শেয়ার হয়। কিন্তু এর পরই শুরু হয় এটি নিয়ে ব্যঙ্গ-বিদ্রূপ।

এ নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তোলেন, সোফিয়ার কোনো পুরুষ অভিভাবক নেই, সে আবায়া (বোরকা) পরে না, মাথায় কাপড় দেয় না। এটা কিভাবে সম্ভব? একটি নারী রোবটের অধিকার কি একজন সৌদি নারীর চেয়ে বেশি?

সৌদির রীতি অনুযায়ী, কোনো মেয়েকে বাইরে যেতে হলে সাথে অবশ্যই একজন পুরুষ অভিভাবক থাকতে হবে এবং নারীকে বাইরে বেরুতে হলে মাথায় হিজাব পরতে হবে।

এ ছাড়াও দ্রুততার সঙ্গে ‘সোফিয়া’কে সৌদি নাগরিকত্ব দেওয়া নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

জানা গেছে, হংকং এর একটি কম্পানি ‘হ্যান্সন রোবোটিক্স’ সোফিয়া নামের এই রোবটটি তৈরি করেছে। রোবটটি ইংরেজিতে কথা বলতে পারে। সূত্র : বিবিসি বাংলা