Wednesday, July 24, 2024
রাজ্য​

ইসলামপুরকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের দাবি করল বিজেপি-আরএসএস

কলকাতা: ইসলামপুরের দাড়িভিট স্কুলে পুলিশের গুলিতে দুই ছাত্রের মৃত্যু হয়নি। বিজেপি-আরএসএস তাদের খুন করেছে বলে ইতালির মিলান থেকে অভিযোগ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমার কাছে খবর আছে, পুলিশের ময়নাতদন্তের পর জানতে পেরেছি, এটা পুলিশের গুলি নয়। একইভাবে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ করেছেন ইসলামপুরের ঘটনায় আরএসএস জড়িত। এবিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে নিশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে বলে আরএসএসের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের দক্ষিণবঙ্গের সম্পাদক জিষ্ণু বসু জানান, গোটা ঘটনাটি অত্যন্ত নৃশংস, অমানবিক ও লজ্জাজনক। ৯২ বছরের ইতিহাস অহিংসা, চরিত্র নির্মাণ, ত্যাগ ও দেশের সেবায় সমর্পিত রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ। জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে দেশমাতার জন্য কাজ করেছে সঙ্ঘ। যেটা সম্প্রতি কেরলে হয়ে যাওয়া বন্যায় সকলে দেখতে পেয়েছেন। ইসলামপুরকাণ্ডে আরএসএস কীভাবে জড়িত তার ব্যাখ্যা দিতে হবে শিক্ষামন্ত্রীকে। ব্যাখ্যা দিতে না পারলে প্রকাশ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে তাঁকে। দোষীদের খুঁজে বের করতে সিবিআই তদন্তের দাবিও জানানো হয় সঙ্ঘের তরফে।

ইসলামপুরকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের দাবি করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও। এমনকি মৃতদের পরিবারের জন্য সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণও দাবি করেছেন তিনি। তাঁর কথায়, বিজেপি-আরএসএসের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে শাসকদল। মুখ্যমন্ত্রী-শিক্ষামন্ত্রী উল্টো-পাল্টা বলছেন। দু’জন ছেলে মারা গিয়েছে। তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিৎ। নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছি আমরা। কাল-পরশু যেতে পারি। যাইনি উত্তেজনা ছড়াতে পারে। অত্যাচার করছে পুলিশ বলেও অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ।

এদিকে, মৃত দুই ছাত্রের মৃতদেহ দাহ করতে অস্বীকার করল দাড়িভিট গ্রামের মানুষজন। তাঁদের দাবি, ঘটনার সিবিআই তদন্ত করা হোক। নিহত প্রাক্তন ছাত্র রাজেশ সরকার ও তাপস বর্মনের কফিনবন্দি মৃতদেহ মাটিতে পুঁতে রাখা হয়েছে। শুক্রবার রাতে দুটি মৃতদেহের ময়না তদন্ত হয়েছে। নিহত রাজেশ সরকারের বাবার দাবি ময়নাতদন্ত হলেও তাঁকে কিছুই জানানো হয়নি। পাশাপাশি তিনি অভিযোগ করেন ধরপাকড়ের নামে পুলিশি হয়রানি চলছে।