Sunday, July 21, 2024
রাজ্য​

চোলাই বিক্রির লভ্যাংশের টাকা যায় অভিষেকের ঘরে: কৈলাস বিজয়বর্গীয়

নদিয়া: শান্তিপুর বিষ মদ খেয়ে মৃত্যুর ঘটনার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করলেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, সরকারি মদ বিক্রির লভ্যাংশের টাকা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। আর বেআইনি মদ বিক্রির লভ্যাংশের টাকা যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘরে। এই মৃত্যুর সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে তাদেরই। শুক্রবার মৃতদের পরিবারকে শোকবার্তা জানাতে শান্তিপুরে যান বিজেপির প্রতিনিধিদল। সেই দলে ছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়।

বিজেপির এরাজ্যের অন্যতম পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, রাজ্যে যে চক্র অবৈধ মদের ব্যবসা চালাচ্ছে তাদের সুরক্ষা দিচ্ছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এই রাজ্যে দু’টি সরকার চলছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়র সরকার এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বলেও কটাক্ষ করেন বিজয়বর্গীয়।

তাঁর কথায়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বৈধ মদের সরকার চালাচ্ছে এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অবৈধ মদের সরকার চালাচ্ছেন। অবৈধ মদের বিক্রির সমস্ত লাভের টাকা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়র বাড়িতে সরাসরি যাচ্ছে। এই মৃত্যুর জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর ভাইপো অভিষেক দায়ি। এরাজ্যে যে সব অবৈধ কাজকর্ম হচ্ছে, তার জন্য দায়ি অভিষেক বলেও দাবি করেন কৈলাস।

উল্লেখ্য, এদিনই শান্তিপুরে গিয়ে বিষ মদ কান্ডে মৃতদের পরিবারের হাতে ২লাখ টাকার ক্ষতিপূরণের চেক তুলে দেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ক্ষতিপূরণ দেওয়া প্রসঙ্গে কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, জনগণকে শান্ত করার জন্য মৃত্যুর দাম হিসেবে ২ লাখ করে দিচ্ছে রাজ্য সরকার। ঘটনার তদন্ত করলে দেখা যাবে দোষীরা সবাই তৃণমূলের।

প্রসঙ্গত, শান্তিপুরে বিষ মদ খেয়ে এখনও পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। এছাড়া আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি ২৫ জন। তাঁদের কলকাতার সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করতে উদ্যোগী হয়েছেন প্রশাসনিক কর্তারা। বিষ মদ কাণ্ডে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও, শান্তিপুরে কোথা থেকে বিষ মদ এসে ছিল, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি।